Archive for category ফ্রিলান্স

অনলাইনে নিজের সাইট থেকে কিভাবে সফটওয়‍্যার অথবা অন‍্যকিছু বিক্রয় করবেন

২০০৭ সালের কথা, কম্পিউটার সায়েন্সের ৩য় বষর্ের ছাত্র আমি। জাভা েপ্রাগ্রামিং ল‍্যাংগুয়েজে খুবই দক্ষ এবং উৎসাহী। শখ করে েমাবাইল েফানে কিভাবে অ‍্যাপ্লিকেশন বানাতে হয় তা শিখলাম। কিছু অ‍্যাপ্লিকেশনও বানালাম। এক বড় ভাই বুদ্ধি দিল অনলাইনে বিক্রয় করার জন‍্য। তখন ইন্টারনেটে খুজে দেখলাম কিভাবে অনলাইনে বিক্রয় করা যায়।

পেপাল (www.paypal.com) খুবই জনপ্রিয় একটা সাইট একাজের জন‍্য। কিন্তু বাংলাদেশে পেপাল নাই। তাইলে কি হবে, অনেক খুজেঁ পেলাম শেয়ার আইটি (http://shareit.com/) খুবই জনপি্রয় এবং ভাল একটা সাইট। এদের সাইট এবং সিস্টেম ব‍্যবহার করে আপনি সফটওয়‍্যার, গ্রাফিক ডিজাইন বিক্রয় করতে পারবেন। এরা একটা নিদির্ষ্ট পরিমান অায় হলে অাপনার ব‍্যাংকে টাকা পাঠায়ে দিবে। অামি দীঘর্ ৩ বছর এদের সাভির্স ব‍্যবহার করেছি।

এরপর ২০১০ সালে পেলাম প্লাইমাস (http://home.plimus.com/ecommerce/) এটাও খুব ভাল একটা সাইট। অার এরা  শেয়ার আইটি থেকে মুনাফা কম করে। সুতরাং অামি এখন প্লাইমাস ব‍্যবহার করে আমার েমাবাইল েফানের অ‍্যাপ্লিকেশন বিক্রয় করি। আপনি নিজের ওয়েবসাইট থেকে সফটওয়‍্যার, গ্রাফিক ডিজাইন যদি বিক্রয় করতে চান, তাহলে শেয়ার আইটি অথবা প্লাইমাস ব‍্যবহার করতে পারেন। অাপনার অায় আপনি এখান থেকে আপনার ব‍্যাংকে খুব সহজেই আনতে পারবেন। আর প্লাইমাস অান্তর্জাতিক মাস্টার কাডর্ও দেয়, সুতরাং আপনি চাইলে প্লাইমাস থেকে আপনার অায় কাডর্েও আনতে পারবেন।

আমার েমাবাইল অ‍্যাপ্লিকেশন বিক্রয় করার সাইটটি হল: http://ftechdb.com যেটা ২০০৭ সাল থেকে এখনও বতর্মান। যদিও এখন আমি জাভাতে কাজ করিনা ২০০৮ সাল থেকে LAMP ওয়েব ডেভলপার হিসেবে কাজ করি, আর পাশাপাশি শখ করে আইোফনে অ‍্যাপ্লিকেশন বানাই

Tags: , ,

অখুশি ক্লায়েন্টকে যেভাবে খুশি করবেন

unhappy clientঅনেক সময় আমাদের এমন হয় যে কাজ করতে গিয়ে আমরা ছোট বড় ভুল করে ফেলি।যখন আপনি কাজ করতে গিয়ে বড় ধরনের কোন ভুল করে ফেলবেন তখন ক্লায়েন্ট আপনার উপর আস্থা হারিয়ে ফেলতে পারে এবং পরবর্তীতে আপনাকে আর কাজ নাও দিতে পারে। অপরদিকে আপনি যদি আপনার কাজ দিয়ে ক্লায়েন্ট কে খুশি করতে পারেন তাহলে সে তার পরবর্তী কাজ আপনাকে দিয়েই করাতে চাইবে।

 

তাই কোনো কারনে ভুল হয়ে গেলে সেটা যদি সময়মত সংশোধন করে নেয়া যায় তাহলে আপনি ক্লায়েন্ট এর প্রশংসা বা সম্মান কোনোটাই হারাবেন না।

Tags: ,

ওডেক্স অনলাইন জব রিপোর্ট – মার্চ ২০১০

odeskআপনি ফ্রিলান্সিং যে সাইটেই করে থাকুন না কেন আপনার উচিত সব ফ্রিলান্স সাইটেই খোঁজ খবর রাখা। আজকে ওডেক্স মার্চ মাসের জব এর উপর একটা রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, সুতরাং একবার রিপোর্ট টা দেখুন।

মার্চ মাস ২০১০ এর ওডেক্স জব রিপোর্ট

একটা জিনিস দেখে ভালো লাগলো বাংলাদেশে ফ্রিলান্সারদের সংখ্যা বাড়ছে।

odesk-provider

Tags: , ,

ফ্রিলান্সিংয়ে যে ধরনের ভুল কখনই করবেন না

mistakeমানুষ মাত্রই ভুল কিন্তু তারপরও আপনি যদি সর্তকভাবে কাজ করেন তবে এ ভুলের মাত্রা অনেক তো কমে যাবেই বরং না হওয়ার সম্ভবনাই বেশি থাকবে। ফ্রিলান্সিং ক্যারিয়ারে যারা নতুন মূলত তাদের জন্যই আমার এ লেখা।

যে কোন ক্যারিয়ারেই আপনাকে আপনার প্রফেশনালিজম ধরে রাখতে হবে যদি আপনি তা না পারেন তবে তা আপনার ক্যারিয়ারের জন্যই ক্ষতিকর। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা অনেক সময় অনেক কিছু করি কিন্তু সতর্কভাবে করি না। ফলাফল হিতে বিপরীত হয়। সুতরাং সতর্কভাবে কাজ করুন এবং ক্যারিয়ারে সফল হন।

পরবর্তী অংশটি পড়ুন »

Tags: , ,

ফ্রিলান্সিংয়ে নিজেকে ঠকাবেন না যোগ্যতা অনুযায়ী দাম ঠিক করুন

freelance cost determinationফ্রিলান্সিং ক্যারিয়ারে আমি দেখেছি অনেকেই নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী আয় করতে পারে না বরং তারা অনেক কম আয় করে। কেন ? কারণ তাদের ভয় বেশি চাইলে যদি ক্লায়েন্ট কাজ আমাকে না দিয়ে অন্যকে দেয়। কিন্তু ভাই আপনি কি এ ভয়েই সারাজীবন কাটাবেন নাকি নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী বেশি আয় করবেন। অথবা বেশি আয় করার দরকার নেই কিন্তু আপনার যে যোগ্যতা তার সমপরিমাণ আয় করুন তাহলেই হবে।

এই আর্টিকেলে আমি বোঝানোর চেষ্টা করব কিভাবে একটা প্রজেক্টের দাম নির্ধারণ করবেন এবং সঠিকভাবে আয় করবেন।

আপনি যদি ফিলান্স সাইটগুলোতে খেয়াল রাখেন তাহলে দেখবেন ভারতীয় এবং চাইনীজ ফ্রিলান্সাররা মূলত অনেক কম টাকায় কাজ করে থাকে।যদিও সবাই না কিন্তু আমি খেয়াল করে দেখেছি বেশিরভাগদেরই রেট কম। আবার তুলনামূলক ভাবে ভারতীয়দের কাজের মানও তত ভাল না সুতরাং রেট তো কম হবেই, তাই বলে আমি এটা বলছি না যে ওদের মধ্যে এক্সপার্ট নাই। আমার ফ্রিলান্স ক্যারিয়ারে আমি ২/৩ জন ভারতীয় কিন্তু আমেরিকায় বাস করে এমন ক্লায়েন্টের কাজ করেছি যারা অনেক ভালো রেট আমাকে দিয়েছে। এখানে রেট বলতে আমি টাকার পরিমান ঘন্টা হিসেবে বুঝায়তেছি, যদি আমি ভারতীয়দের থেকে আমার যোগ্যতা প্রমান না করতে পারতাম তাইলে তো আর কাজ পাইতাম না, তাইনা। সুতরাং এটা স্পষ্টতই বোঝা যায় যে আপনি যদি আপনার যোগ্যতা প্রমাণ করতে পারেন এবং তা যদি আপনার ক্লায়েন্টের কাছে বোঝাতে পারেন তবে আপনি অবশ্যই ভালো রেটে কাজ করতে পারবেন।

পরবর্তী অংশটি পড়ুন »

Tags: , , ,

প্রত্যেক ফ্রিলান্সারদের যে ৫টি দক্ষতা থাকা দরকার

freelance-skillফ্রিলান্স যারা করে তারা নিজ থেকেয় অনেক দক্ষতা অর্জন করে ফেলে। কিন্তু যারা এই লাইনে নতুন তাদের প্রত্যেকের কিছু প্রাথমিক বিষয়ে দক্ষতা থাকা দরকার। এতে করে ক্লায়েন্ট যেমন সন্তুষ্ট হবে তেমনি ভালো রেটিং পাওয়া যাবে। এই দক্ষতাগুলো ফ্রিলান্স ক্যারিয়ারের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সবসময়ের জন্য দরকার। এই আর্টিকেলে আমি সেরকম কিছু বিষয় নিয়েই আলোচনা করব।

১. ইমেইল এর মাধ্যমে যোগাযোগ

যোগাযোগের ক্ষেত্রে ইমেইল খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা মাধ্যম। একজন ফ্রিলান্সার হিসেবে আপনাকে অবশ্যয় জানতে হবে কিভাবে ভালো ইমেইল লিখতে হয়। যেহেতু ইংরেজীতে আমাদের ক্লায়েন্ট এর সাথে যোগাযোগ করতে হয় তাই ভালো ইংরেজী লিখতে পারাটা খুবই গুরত্বপূর্ণ। ব্যাকরণগত ভুল যাতে না হয় এবং ভুল বানান যাতে না হয় এদিকে নজর দিতে হবে। প্রথমদিকে এজন্য ভালো কোন ওয়ার্ড প্রসেসর যেমন মাইক্রোসফট ওয়ার্ড অথবা ওপেন অফিস এর ওয়ার্ড প্রসেসর ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া আপনি যদি ফায়ারফক্স ব্রাউজার ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ইংরেজী ডিকশনারি প্লাগিন ইনস্টল করে নেওয়া উচিত। মনে রাখবেন রিমোর্ট কাজের ক্ষেত্রে ক্লায়েন্ট আপনাকে দেখতে পাচ্ছে না সুতরাং আপনার কথা যদি ক্লায়েন্ট বুঝতেই না পারে তাহলে আপনার জন্যই তা সমস্যা হয়ে দাড়াবে। ইমেইল এর জন্য গুগল এর জিমেইল ব্যবহার করাটা আমি বেশি পছন্দ করি এছাড়া আপনি ইয়াহু, এমএসএন, স্কাইপও ব্যবহার করতে পারেন।

পরবর্তী অংশটি পড়ুন »

Tags: , , ,

ফ্রিলান্সিং সাইট থেকে টাকা আনার পদ্ধতি

আমার কাছে অনেকেই জিজ্ঞাসা করে ফ্রিলান্সতো করতে চাই কিন্তু টাকা দেশে আনবো কেমনে। অনেকে আবার মনে করে পেপাল (একটা পেমেন্ট পদ্ধতি) এদেশে সেবা দেয় না সুতরাং কোন ভাবেই টাকা আনা যাবে না।আমার এই আর্টিকেল লেখার উদ্দেশ্য হল ফ্রিলান্সিং করে কিভাবে টাকা আপনার কাছে আনবেন তা পরিস্কার ভাবে জানানো।

এখানে আর একটি কখা বলে রাখি সাধারণত সবগুলো ফ্রিলান্স সাইট খেকে টাকা আনার পদ্ধতি একইরকম। সুতরাং ঘাবড়াবার কিছুই নাই।

নিচে আমি ওডেক্স এবং ফ্রিলান্সার সাইট যে পদ্ধতিগুলো টাকা আনার জন্য সাপোর্ট করে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করতেছি। পরবর্তী অংশটি পড়ুন »

Tags: , , , , , ,

ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিলান্স

ফ্রিলান্স কি?

ফ্রিলান্স হল নিজে নিজে চাকুরী করা এবং খুব দীর্ঘ সময়ের জন্য কোন নিয়োগকর্তার সাথে নিয়োগ চুক্তিতে না যাওয়া। যারা এভাবে কাজ করে তাদেরকে ফ্রিলান্সার বলে। কেউ ফ্রিলান্স ফুল টাইম অথবা পার্ট টাইম ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে পারে। ফ্রিলান্সাররা ঘণ্টা, দিন অথবা প্রযেক্ট এর ভিত্তিতে কাজ করে।এখনকার দিনে ফ্রিলান্সার বলতে মুলত লেখক, ডিজাইনার এবং প্রোগ্রামার দেরকেই বুঝায়। ফ্রিলান্সারদের কোন অফিস নাই। তারা ঘরে, পার্কে যেকোন যায়গায় কাজ করতে পারে।

যেভাবে ফ্রিলান্সার হওয়া যায়

ফ্রিলান্সারদেরকে নিজে নিজেয় কাজ যোগার করতে হয়। এটা ফ্রিলান্স ক্যারিয়ারের শুরুতে কঠিন মনে হতে পারে। কিন্তু আমি আলোচনা করব কিভাবে এই কঠিন কাজটা সহজে করা যায়। আমার এই আর্টিকেল লেখার প্রধান উদ্দেশ্য আমার দেশের মানুষ যেন ফিলান্স করতে উৎসাহী হয় এবং বিভিন্ন ফ্রিলান্স সাইটে বাংলাদেশের নাম উজ্জল করে। পরবর্তী অংশটি পড়ুন »

Tags: , , , ,